Smiley face

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী হলেও লিওনেল মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর মধ্যে মিল আছে অনেক। গোল করা ও করানোর ক্ষুধা দুজনেরই অদম্য, দুজনেই পাঁচবার করে বিশ্বসেরা ফুটবলারের খেতাব পেয়েছেন। এমনকি গত বিশ্বকাপেও দুজনের দল দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে একই দিনে বাদ পড়েছে। মেসির আর্জেন্টিনা হেরেছিল ফ্রান্সের কাছে, রোনালদোর পর্তুগাল উরুগুয়ের কাছে। দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায়ের পর দুজনই ‘স্বেচ্ছাবসর’ নিয়েছিলেন। বিশ্বকাপের পর কোনো ম্যাচে জাতীয় দলের হয়ে খেলেননি। নয় মাস পর মেসি জাতীয় দলে ফিরেছেন কিছু আগে, কাল জানা গেল, ফিরছেন রোনালদোও!

২০২০ ইউরো বাছাইপর্বের ম্যাচে ইউক্রেন ও সার্বিয়ার বিপক্ষে দলে নেওয়া হয়েছে পর্তুগাল অধিনায়ককে। ২২ মার্চ ও ২৫ মার্চে ম্যাচ দুটি হবে। দুটি ম্যাচই হবে পর্তুগালের রাজধানী লিসবনে। এর আগে রোনালদোকে বাদ দিয়েই জাতীয় দলের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস উয়েফা নেশনস লিগের ফাইনালে তোলেন পর্তুগালকে। রোনালদো ছাড়াও পর্তুগাল দলে রয়েছে বেশ কিছু চমক। বেনফিকার হয়ে আলো ছড়ানো ‘নতুন রোনালদো’ তকমা পাওয়া উইঙ্গার হোয়াও ফেলিক্সকে দলে ডেকেছেন সান্তোস। পর্তুগালের হয়ে অভিষেক হয়ে যেতে পারে তাঁর। এই মৌসুমে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ফেলিক্সকে পাওয়ার জন্য এর মধ্যেই লড়াই শুরু করে দিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস, বার্সেলোনা, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও লিভারপুলের মতো ক্লাবগুলো।

ওদিকে মার্চের শেষ দিকে মরক্কো ও ভেনিজুয়েলার বিপক্ষে দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলার জন্য আর্জেন্টিনা দলে ডাক পেয়েছেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি। এই দুটি ম্যাচের মধ্যে দিয়ে নয় মাস পর জাতীয় দলের জার্সি গায়ে চড়াচ্ছেন তিনিও।

Smiley face

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here